Tuesday, May 12, 2015

অনন্ত বিজয়

আপনার সাথে দেখা হয়েছে অনেকবার
অফিসে, রাস্তায়, ছাপাখানায়, মিছিলে
আপনি কথা বলতেন নির্ভয়ে, স্থিরতায়
আমার অপরিসর খুপড়িতে লাল চা
হয়েছিলো কোন একদিন, বাঁধাই ঘরের
সামনে দাঁড়িয়ে খুনসুটি করেছি, কার
কাজ আগে করানো যায় তার জন্য
তাড়া দিয়েছি মলাট মাল্লারকে
মিছিলে মিশে যাওয়া মুখে আপনি
ছিলেন, ছিলাম আমিও। চিৎকারে
অনভ্যস্থ আমাদের গলা ভেঙে গেলে
ফুটপাতের আদা চা’য়ে ভাগ বসিয়ে
সুমন’দার ঘাড়ে বিলের দায় চাপিয়েছি
সকলই গৌণ স্মৃতি, আমরা গৌণ মানুষ
আপনি বেঁচে থাকলে কোনদিন মনে হতো
না, এখন সেইসব মূখর সময়কেই বড় বেশি
মৌন মনে হচ্ছে। ভালো থাকবেন অনন্ত...

Monday, May 11, 2015

বুচ্ছি, আপনে কে সেইটা বুচ্ছি

কয়েকটা ছবিতে সয়লাব হয়ে গেছে ফেসবুক। এখানে একটা তুলে দিলাম। হু বিষয়টা দুঃখজনক। একটা মেয়েকে এভাবে পুলিশ নির্যাতন করতে পারে না। এর নিন্দা জানাই। কিন্তু এটা নিয়ে ঘাটাঘাটি করার কোন মানে নাই। ইউ হ্যাভ টু বুঝতে হবে, পুলিশকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের জন্যই কঠোর হতে হয়। আপনার এই ছবিটা দেখার পর কস্ট লাগবে, রাগ উঠবে, সেটাই হওয়া উচিত। আমারও হয়েছে। কিন্তু ইউ হ্যাভ টু এ তুকাতুকি মাইন্ড। আপনাকে তুকাতুকি, মানে খুঁজাখুঁজি করতে হবে।
ঘটনা কী ঘটেছিলো সেটা বের করতে হবে। তখন আপনারও, আমার মতো রাগ কমে যাবে। যেমন এই ছবিটার আগের ছবি। হ্যা ওটা আপনাকে খুঁজে বের করে দেখতে হবে। সেই ছবি এম্নি এম্নি আপনাকে কেউ দেখাবে না। এটাই হয়ে আসছে এখন। সবাই সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চায়। এজন্য এই মেয়েটি মার খাবার ঠিক আগে কী করেছিলো সেটা আপনার কাছ থেকে আড়াল করা হবে। আপনি জানেন এ কি করেছিলো? হু, এইবার ২য় ছবিটা দেখুন। এই অসভ্য মেয়ে পুলিশের গাড়িতে ফুলের টব ছুড়ে মেরেছিলো! একবার চিন্তা করেনতো বিষয়টা! এভাবে রাস্ট্র চলতে পারে বলেন? একটা মেয়ে, ফুলের টব ছুড়ে মারে পুলিশের গাড়িতে! এর পরেও পুলিশকে বসে থাকতে হবে? আপনি যদি সেটা বলেন তখন আপনার অবস্থান নিয়েই আমি সন্দেহ করবো। নিশ্চিতভাবেই আপনার মনের ভেতর কালা আছে।
আমার বুঝে আসে না, এক মুখে আপনারা কেমন করে দু রকম কথা বলেন। এই আপনারাই অভিজিৎ খুন হবার পর, পুলিশ কোন একশন করেনি বলে মাঠ গরম করে ফেল্লেন। এই আপনারাই পহেলা বৈশাখে কেনো পুলিশ কিছু করেনি বলে তাওয়া গরম করে ফেল্লেন। আর এখন, আপনাদেরই কথা মেনে যখন শান্তিপ্রিয় পুলিশ আজ, নিজেদের উপর হামলা ফেরাতে মৃদু বেত্রাঘাত করলো তখন হাউকাউ শুরু করলেন! নাহ আপনাকে নিয়ে, আপনাদের নিয়ে আমার ভেতরে একটা খটমটো তৈরি হয়ে গেলো আজ। আপনারা দেশের ভালো চান না, চাইতে পারেন না। আচ্ছা, গতবার কাকে ভোট দিয়েছিলেন বলেনতো, সত্যি করে বলবেন...
তারপর, এই যে আন্দোলন হচ্ছে, এটা নিয়েও কিন্তু প্রশ্ন আছে। এই আন্দোলন কেনো হচ্ছে বলেনতো? পহেলা বৈশাখের সেই ঘটনার জন্যতো? ভাই, একটা প্রশ্নের উত্তর দেনতো, সরকার এই বিষয়ে তার অবস্থান জানাইছে কীনা বলেন? সরকার সেদিনের সেই ঘটনারে সাপোর্ট করছে বলে মনে করেন? এই ঘটনার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করেনাই? সেই খবর আপ্নে পান নাই? যদি পেয়ে থাকেন তাইলে কেনো এইসব আন্দোলন খেলা বলেনতো? সবকিছু নিয়া রাজনীতি না করলে হয় না? সরকার যদি এই বিষয় নিয়া কিছু না করতো, তখন আমিও আন্দোলনে নামতাম, সব বিবেকবান মানুষই আজ মাঠে থাকতো। কিন্তু সেটাতো হয়নাই। এইসব বেকামা দলের কাজই হইলো সুন্দর সুন্দর স্লোগান দেওয়া, কায়দা করে ব্যানার বানানো আর একটা অস্থিতিশীল অবস্থা তৈরি করা। যদিও সেইটা তারা পারে না। তারপরেও ফালতু বিষয় নিয়া লাড়ালাড়ি করে। আরে ভাই, একটু সময় দিলে কী হয় আপনাদের? সরকারতো আসমানী শক্তি নিয়া দেশ চালায় না। তারে সিস্টেমেরে মাঝে চলতে হয়। সরকারের নানা কাজ আছে। কই কোন ভিড়ের মাঝে কয়কেটা মেয়ের শরিরে একটু ডলা লাগছে, সেইটা নিয়া যদি পড়ে থাকে সরকার তাইলে দেশ চলবে কেমন করে বলেন? মাঝে মাঝে বুঝলেন, খুব অবাক লাগে আপনাদের দেখলে, শত শত মানুষ পুড়ে মরে যায়, আপনারা কিছু বলেন না। আর একটামাত্র অভিজিৎ এর জন্য হায় হায় করে উঠেন। সাইধা গিয়া মেয়েগুলা ভিড়ের মাঝে ঢুকে সেইটা আপনারা দেখেন না।কোনখানের কে সেইটার সুযোগ নিছে, সেই বিচ্ছিন্ন ঘটনা নিয়া দুনিয়া গরম করে ফেলেন। পুলিশ মাইয়ারে পিটাইতাছে সেই ছবি ফেইসবুকে শেয়ার করেন, অথচ এই মাইয়াটাই ফুলের টব ছুড়ে মারে পুলিশের গাড়িতে সেইটা বেমালুম চেপে যান।
ওহ, আরেকটা কথা, বিএনপি জামাত পুলিশে তাদের কয় হাজার ক্যাডার ঢুকায়া রাখছে এই হিসাবটা কখনো করছেন? জানি করবেন না। আফসুস...